পার্লারের মতন মেনিকিউর- পেডিকিউর

June 23, 2017, 5:09 p.m. ফ্যাশন


সানজানা ফারিয়া

 

স্কিন বা চুলের যত্নে সচেতনতা থাকলেও একটা জায়গায় আমরা বেশ ভালভাবেই আটকে যাই, সেটা হলো পার্লার খরচ। প্রতিমাসে একটা ভাল পরিমাণ টাকা পার্লারের জন্য বরাদ্দ রাখা অনেক সময় চাইলেও সম্ভব হয়না। সেটার বিকল্প হিসাবে আমি শুরু করেছিলাম অনলাইনে পড়াশোনা ও ইউটিউব থেকে দেখে শেখা। সেরকম কিছু লেসন থেকে একেবারে ঘরে থাকা জিনিস দিয়েই কিভাবে স্কিনের বা চুলের যত্ন নেওয়া যায়, সেটার উপরে সিরিজ পোস্টের এটা ৩য় পর্ব।

আলোচ্য প্রতিটা টোটকাই আমার নিজের উপর পরীক্ষিত ও যেগুলাতে ভাল রেজাল্ট পেয়েছি সেগুলোই শেয়ার করবো।)

 

আজকের আলোচ্য বিষয় – হাত ও পায়ের যত্ন

 

মুখ বা চুল নিয়ে আমরা যতটা সচেতন ঠিক ততটাই অবহেলায় থাকে আমাদের হাত ও পা, এদের উপর দিয়ে বেশ ভাল রকমেরই ধকল যায় রোজ। খুব সহজে ঘরে থাকা উপাদান দিয়েই হাত ও পা এর যত্ন নিয়ে ফেলা যায়। সেটার ব্যাপারেই আলোচনা করব আমি এখন:

 

প্রয়োজনীয় উপাদান:

১. গরম পানি- প্রয়োজনমত

২. বেবি শ্যাম্পু – ৪ টেবিল চামচ বা প্রয়োজন মত (বা যে কোন মাইল্ড শ্যাম্পু ও ব্যাবহার করা যায়,  এন্টি ড্যানড্রাফ বা এই টাইপের শ্যাম্পু একদম ই না)

৩. লেবু- বড় সাইজের ১ টা, ছোট হলে ২ টা

৪. মধু- ৫ টেবিল চামচ

 

প্যাক বানানোর জন্য-

১. চিনি ৩/৪ চামচ

২. কফি- ২ চামচ

৩. লেবু- অর্ধেক টা

৪. মধু – ২ চামচ

৫. বেকিং সোডা- এক চামচের অর্ধেক  বা তার ও কম

 

প্রথম ধাপ :

একটা গামলা/ বড় পাত্রে কুসুম গরম পানি নিয়ে তাতে বেবী শ্যাম্পু মিশিয়ে দশ মিনিট পা অথবা হাত ভিজিয়ে বসে থাকুন। এর পর খুব ভাল ভাবে ব্রাশ (বাজারে পেডিকিউর ব্রাশ পাওয়া যায় সেটা ব্যাবহার করতে পারেন) দিয়ে পা/হাত+নখ ঘসে নিন,  হাতের ব্যাপারে সচেতন থাকবেন কারণ হাতের স্কিন পা এর তুলনায় পাতলা হয়।

 

দ্বিতীয় ধাপ:

হাত/পা ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিয়ে পূর্বে ব্যাবহৃত পানি ফেলে দিয়ে পুনরায় কুসুম গরম পানি নিয়ে এতে লেবু ও মধু মিশিয়ে আবারো ১০ মিনিট হাত/ পা ভিজিয়ে রাখুন। দশ মিনিট পর ব্যাবহৃত লেবুর খোসা দিয়ে গোড়ালি, নখ, হাতের কনুই ভালভাবে ঘসুন, এতে কাল দাগ খুব সহজে দূর হবে।

 

 

তৃতীয় ধাপঃ

আবারো ঠান্ডা পানি দিয়ে হাত/পা ধুয়ে নিয়ে নরম তোলায়ে দিয়ে মুছে প্যাক টা বানিয়ে লাগান ও দশ থেকে পনের মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর আলতো হাতে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন। ও তোয়ালে দিয়ে মুছে নিজের পছন্দমত লোশন মশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। নখ কেটে ফাইলিং করার কাজ টাও সেরে ফেলতে পারেন।

ব্যাস হয়ে গেল! স্কিনের তফাত টা নিজেই বুঝতে পারবেন। পার্সোনালি এই প্যাক টা আমার খুব ফেভারিট। স্কিনের সান ট্যান দূর করার পাশাপাশি খুব সফট ও করে।

ধন্যবাদ।

 

ফ্রি টিপস:

ভুলেও প্যাকটি মুখে ব্যাবহার করবেন না।

blog comments powered by Disqus