বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের নিয়ে আগ্রহ বাড়ছে কাউন্টিতে

July 17, 2017, 1:37 p.m. খেলাধুলা

বিশ্বমঞ্চে টাইগারদের পারফরম্যান্সে বিদেশী লিগের ক্লাবগুলো আগ্রহী হচ্ছে এদেশের ক্রিকেটারদের প্রতি।

নিউজ ডেস্কঃ তাই তো সাকিব-তামিম-মোস্তাফিজদের পর, ইংলিশ কাউন্টিতে দেখা যেতে পারে আরও টাইগার ক্রিকেটার। ইংলিশ কাউন্টির অন্যতম সফল দল, ওয়ারউইকশায়ারের প্রধান নির্বাহী নিল স্নোবল ইঙ্গিত দিয়েছেন তেমনই। সেই সঙ্গে সময় সংবাদকে তিনি জানান, যে কোনো দেশের ক্লাব কাঠামো শক্তিশালী হলেই সুফল পাবে জাতীয় দল।

ইংলিশ কাউন্টিকে বলা হয় বিশ্বের সবচেয়ে অভিজাত ঘরোয়া ক্রিকেট। যেখানে খেলাটা সব ক্রিকেটারের কাছে স্বপ্নের মত। বাংলাদেশের ক্রিকেটাররাও গেলো ক'বছর হলো ফার্স্ট ক্লাস ও মাইনর কাউন্টিগুলোতে খেলে আসছে।

যদিও কাউন্টিতে খেলা বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের তালিকাটা খুব লম্বা নয়। প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে খেলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। এরপর খেলেছেন তামিম ও মোস্তাফিজ। বৈশ্বিক মঞ্চে পারফরম্যান্সের কারণে বিদেশী লিগগুলোতেও বাড়ছে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের কদর। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি সেই সুযোগ আরও প্রসারিত করেছে। তাই ভবিষ্যতে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের প্রতি আরও আগ্রহী হবে কাউন্টি দলগুলো, এমনটাই মনে করেন কাউন্টি ক্লাব ওয়ারউইকশায়ারের প্রধান নির্বাহী নিল স্নোবল।

'বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা দারুণ প্রতিভাবান। দিনে দিনে তারা আরও পরিণত হচ্ছে। ইংলিশ কাউন্টি দলগুলোও তাদের পারফরম্যান্স পর্যবেক্ষণ করে থাকে। বার্মিংহামে অনেক বাংলাদেশী থাকেন যারা ক্রিকেট ভালোবাসেন। বলা যায় না ভবিষ্যতে, ওয়ারউইকশায়ার কিংবা বার্মিংহাম বিয়ারসে কোনো বাংলাদেশী ক্রিকেটারকে দেখা যেতেও পারে।' বলছিলেন নিল স্নোবল।

ইংল্যান্ডের প্রায় প্রতিটি কাউন্টিরই বয়সভিত্তিক দল ছাড়াও আছে আলাদা একাডেমী। যেখানে বেশ ছোট বয়স থেকেই ক্রিকেটের নিয়মগুলো রপ্ত করতে শুরু করে শিশুরা। এর সুফল পায় জাতীয় দলও। ওয়ারউইকশায়ারে ক্যারিয়ার শুরু করে জাতীয় দলে প্রতিনিধিত্ব করেছেন ইয়ান বেল, জনাথান ট্রট, নিক নাইট এবং ক্রিস ওকসের মত ক্রিকেটাররা। কিন্তু বাংলাদেশে চিত্রটা ঠিক উলটো। শীর্ষ ক্লাবগুলো সবসময়ই ছুটতে থাকে জাতীয় দলের তারকাদের পেছনে। ওয়ারউইকশায়ারের প্রধান নির্বাহীর মতে, একটি দেশের ক্লাব ক্রিকেটের কাঠামো শক্তিশালী হলে এর সুফল পায় জাতীয় দলও।

নিল স্নোবল বলেন, 'যে কোনো দেশের ক্লাব কাঠামো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ দেশের ফার্স্ট ক্লাস এবং মাইনর কাউন্টিগুলোতে যা দেখা যায়। শুধু মাঠ থাকলেই হবে না। খেলোয়াড়দের অনেক ছোট বয়স থেকে ক্রিকেটের খুটিনাটি বিষয়গুলো শেখাতে হবে। এটা বেশ সময় সাপেক্ষ ব্যাপার এবং এর জন্য আপনাকে অর্থ বিনিয়োগও করতে হবে। ক্লাবগুলোর ক্রিকেট কাঠামো শক্তিশালী হলে নতুন নতুন ক্রিকেটার বের হবে। এবং জাতীয় দলও এর সুফল পাবে।'

ইয়র্কশায়ার, সারে, মিডলসেক্স ও ল্যাংকাশায়ারের পর ইংলিশ কাউন্টির সবচেয়ে সফল দল ওয়ারউইকশায়ার। এখন পর্যন্ত কখনো বাংলাদেশে না আসলেও, ভবিষ্যতে এ দেশের কোনো ক্লাবের সঙ্গে প্রীতি ম্যাচ খেলার পরিকল্পনা আছে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপের ৭ বার শিরোপা জেতা দলটির।

blog comments powered by Disqus